গাজীপুর মহানগরের পূবাইল এলাকায় প্রায় প্রতি রাতেই গরু চুরির ঘটনা ঘটছে। চোর ধরতে গিয়ে আক্রমনের শিকার হয়েছেন এক গৃহকর্তা। মহানগরীর কুদাব ও চামুড্ডা গ্রামের তিনটি বাড়ী থেকে গত তিন দিনে আটটি গরু চুরি হয়েছে। এতে স্থানীয়রা দিশেহারা হয়ে পরেছেন। গত ১৭ এপ্রিল গভীর রাতে গাজীপুর মহানগরের পূবাইল এলাকার কুদাব গ্রামের মৃত- আমিজ উদ্দিন কাজীর ছেলে, আব্দুল বাতেন কাজীর গোয়াল থেকে পাচঁটি গরু চুরি হয়ে যায়। গৃহকর্তা জানিয়েছেন, প্রতি দিনের মতো সন্ধ্যায় নিজ ঘরের পাশে গোয়ালে তিনটি গাভী ও দুইটি বাছুর গরু বেধে রেখে দরজা আটকিয়ে পাশের কক্ষে ঘুমিয়ে পরেন।

গভীর রাতে গরু চোরেরা দরজা ভেঙ্গে গোয়ালে প্রবেশ করেন। দরজা ভাঙ্গার শব্দ শুনে পাশের কক্ষ থেকে বাতেন কাজী এগিয়ে আসলে চোরেরা লোহার রড দিয়ে বেধড়ক পিটিয়ে ঘরে আটকে রাখে। এ সময় পাশের রাস্তায় থাকা ট্রাকে ওই পাচঁটি গরু উঠিয়ে নিয়ে পালিয়ে যায়। এলাকাবাসি তাকে উদ্ধার করে টঙ্গি শহিদ আহসান উল্লাহ মাস্টার সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য পাঠিয়েছেন। গত ১৬ এপ্রিল চামুড্ডা গ্রামের মৃত কেতু মিয়ার ছেলে মুল্লুকের গোয়াল থেকে একটি, একই গ্রামের মৃত মফিজুল ইসলামের স্ত্রী আমেনা বেগমের গোয়াল থেকে দুইটি সহ মোট আটটি গরু চুরি হয়েছে গত তিন দিনে। সম্প্রতি পদ হারবাইদ গ্রামের ভূঁইয়া বাড়ির বাবলু ভূঁইয়ার তিনটি,করমতলা গ্রামের মৃত জামাল উদ্দিনের ছেলে স্বপন মিয়ার দুইটি,একই গ্রামের মৃত সের আলীর ছেলে সহর আলীর দুইটি গরু গোয়াল থেকে রাতে চুরি হয়েছে।

এ ছাড়া ইছালি,ডেমর পাড়া,বিল্লাসারা,ভাদুন,খিলগাঁও,বিন্দান,মারুকা,হায়দরাবাদ ও মেঘডুবি সহ পূবাইলের সর্বত্র গরু চুরির ঘটনায় অনেক কৃষক সর্বশান্ত হয়ে পরেছে।

গত ১৮ এপ্রিল পূবাইল কলেজ গেইট ও করমতলা এলাকায় মধ্য রাতে সন্দেহভাজন ১০-১২ জন লোক ট্রাকে করে এসে গুরাফিরা করছিল। ¯’ানিয়রা টের পেয়ে আস-পাশের মসজিদের মাইকে মানুষ জনকে সতর্ক করলে ট্রাকসহ দ্রুত পালিয়ে যায়। কুদাব গ্রামের বাতেন কাজী ও পদ-হারবাইদ গ্রামের বাবলু ভূঁইয়ার গরু চুরির ঘটনায় গাজীপুর মেেট্রাপলিটন পুলিশের,পূবাইল থানায় মামলা হয়েছে। পূবাইলের কৃষকেরা রাতে ¯” স্থানীয় পুলিশের নজরদারি বৃদ্ধি করার দাবি জানিয়েছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here